ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের কুকীর্তি, জানালার ফাঁক দিয়ে ভিডিও ধারণ! এরপর..

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাবনার ঈশ্বরদীতে এক কলেজ পড়ুয়া এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষককে আটক করে পুলিশে হাতে তুলে দিয়েছে গ্রামবাসী। রবিবার উপজেলার পাকশী ইউনিয়নের বাঘইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) ওই শিক্ষার্থীর বাবা নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার দেখালে দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাঘইল গ্রামের স্থানীয় প্রাইভেট শিক্ষক সামসুল হকের (৪২) বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় যৌন নির্যাতনের অভিযোগ উঠলেও প্রমাণের অভাবে ব্যবস্থা নিতে পারেননি এলাকাবাসী।

সম্প্রতি সামসুল নিজ কোচিং সেন্টারে এক ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন করেন। গ্রামের কয়েকজন যুবক জানালার ফাঁক দিয়ে সে দৃশ্য মোবাইলে ভিডিও করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। ফেসবুকে এ দৃশ্য দেখে গ্রামের বিভিন্ন দোকানে ও মোড়ে মোড়ে লোকজনের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় গ্রামবাসী সামসুলকে আটক করে পুলিশে খবর দেন।

খবর পেয়ে রবিবার রাতে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় যারা ভিডিওটি ফেসবুকে আপলোড করেছিল, সেসব যুবকের মোবাইল ফোনও জব্দ করেছে পুলিশ। আটক হওয়া সামসুল পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার গোলাম ওহাব মোল্লার ছেলে।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক বলেন, সামসুল ইসলামের বিরুদ্ধে নির্যাতিত শিক্ষার্থীর বাবা সোমবার নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় পুলিশ অভিযুক্ত সামসুলের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে। দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত শেষে দ্রুত অভিযোগ পত্র দেয়া হবে।

জুমবাংলানিউজ/এসওআর