চোখের সামনেই ভেসে গেল স্বপ্ন…

 

পদ্মার পানি বাড়তে থাকায় প্রবল স্রোতে শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে ভাঙন অব্যাহত আছে। বুধবারও চারটি ইউনিয়নের ৫০টি বসতভিটা ও ৩টি বাজার নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এদিকে, কুষ্টিয়ার শিলাইদহে রবীন্দ্রকুঠিবাড়ি রক্ষা বাঁধে ভাঙন প্রতিরোধে বালুভর্তি ব্যাগ ফেলছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

শরীয়তপুর
একদিনের ব্যবধানে আবারো নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেল শরীয়তপুর জেলার ঐতিহ্যবাহী মুলফতগঞ্জ বাজারের আরো তিনটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান।

একটু একটু করে গড়ে তোলা স্বপ্নের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান চোখের সামনে নিশ্চিহ্ন হতে দেখে হতবাক শরীয়তপুরের নড়িয়ার ঐতিহ্যবাহী মূলফতগঞ্জ, ইমান হোসেন ও নুর হোসেন বাজারের ব্যবসায়ীরা।

মঙ্গলবার দুপুর থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে শরীয়তপুর নড়িয়া উপজেলার সদর, কেদারপুর, মোক্তারের চর ও ঘরিষার ইউনিয়নে। এ চার ইউনিয়নের ৫০টি বসতভিটা নতুন করে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা রক্ষায় অস্থায়ীভাবে ভাঙন রোধে জিওব্যাগ ফেলছে উপজেলা প্রশাসন।

কুষ্টিয়া
এদিকে কুষ্টিয়ার শিলাইদহে রবীন্দ্রকুঠিবাড়ি রক্ষা বাঁধে ভাঙন প্রতিরোধে বালুভর্তি জিওব্যাগ ফেলছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। বুধবার বিকেলে রবীন্দ্রকুঠিবাড়ি রক্ষা বাঁধের ভেঙে যাওয়া অংশ পরিদর্শন করেন পানি উন্নয়ন বোর্ড পশ্চিমাঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম ওয়াহেদ চৌধুরী। বর্ষা মৌসুম শেষ হলেই বাঁধটি মেরামতের আশ্বাস দিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তা।