গ্রামের মেয়ে বিচারকের আসনে….

 

গ্রামের সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে নৌশিন আঞ্জুম। তিনিই এখন জেলা আদালতের বিচারকের আসনে।
উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপোখর ব্লকের পাঞ্জিপাড়া গ্রামের মেয়ে নৌশিন পশ্চিমবঙ্গ জুডিশিয়াল সার্ভিস পরীক্ষায় পাস করেন। তাঁর এই সাফল্য খুশি বাবা মা। বাবা নুরুল ইসলাম পেশায় স্কুল শিক্ষক। মা গহর আঞ্জুম সাধারণ গৃহবধূ। পাঞ্জিপাড়া বাড়ি হলে বর্তমানে কর্মসুত্রে তাঁরা ইসলামপুর শহরের মেলামাঠ থাকছেন। বাবা দাড়িভিট হাইস্কুলের শিক্ষকতা করেন। মফস্‌সল এলাকা থেকে কোনও কোচিং ছাড়াই বিচারকের পরীক্ষায় সাফল্য পেয়ে সবার নজর কেড়েছেন।
জেলার সব থেকে পিছিয়ে পড়া এলাকা গোয়ালপোখর ব্লক। নুরুল হুদা জানান, মেয়ে ২০১০ সালে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন নিয়ে পাশ করার পরে ২০১৩ সালে হায়দরাবাদ থেকে এলএলএম পাশ করে ২০১৫ সালে জুডিশিয়াল পরীক্ষায় বসেন নৌশিন। ২০১৭ সালে প্রথম ট্রেনিং পোস্টিং হয় রায়গঞ্জ জেলা আদালতে। বাবা বললেন, ‘‘মেয়ের ইচ্ছায় আইন নিয়ে পড়াশোনার জন্য উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি করি। আর দশটা গতানুগতিক পেশাকে না বেছে তার স্বপ্ন ছিলই একজন বিচারক হওয়ার। আর এতে তাঁর সাফল্য।’’ নৌশিনের সাফল্য খুশি ইসলামপুর গার্লস হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষিকা জগদ্ধাত্রী সরকার। তিনি বলেন, ‘‘নৌশিন জেলার মেয়েদের গর্ব।’’