1. skarman0199094@gmail.com : Sk Arman : Sk Arman
  2. alamran777777@gmail.com : স্বদেশ বাংলা : স্বদেশ বাংলা
  3. alamran2355@gmail.com : স্বদেশ বাংলা : স্বদেশ বাংলা
  4. mijankhan298@gmail.com : স্বদেশ বাংলা : স্বদেশ বাংলা

বেশী লোভ কইরেন না, সর্বশান্ত হবেন ইভ্যালি-ধামাকা নিয়ে সতর্ক!

  • প্রকাশিত : ০৮:৫০ am | বৃহস্পতিবার ২৪ জুন, ২০২১
  • ৯৯ বার পঠিত

দৈনিক সময়: কয়েকটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য ক্রয়ের ব্যাপারে সতর্ক করে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেছেন ‘কম দামে মাল কেনার বেশী লোভ কইরেন না, সর্বশান্ত হবেন!’ সম্প্রতি ইভ্যালির চলতি দায় ও লোকসান দুটিই ক্রমান্বয়ে বাড়ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে সম্প্রতি ইভ্যালি.কম.বিডি-এর ওপর পরিচালিত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক পরিদর্শন প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

সেই প্রতিবেদন তুলে ধরেই বুধবার (২৩ জুন) বিকেলে সুপ্রিম কোর্ট চত্বর থেকে ফেসবুক লাইভে ব্যারিস্টার সুমন ইভ্যালি ও ধামাকাসহ ১০টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। ব্যারিস্টার সুমন বলেন, লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু। আমি আজ ই-কমার্স নিয়ে কথা বলতে চাই।

ইভ্যালি, ধামাকার মতো ই-কমার্স কোম্পানি আছে, তাদের বিষয়ে কথা বলব। আমরা অনলাইনে তাদের কাছ থেকে পণ্য কিনি, কম টাকায়।

তারা কম টাকায় বেশি দামের পণ্য দিচ্ছে। আমি বলতে চাই, এদের নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের একটা তদন্ত রিপোর্ট এসেছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, ইভ্যালির মোট সম্পদের চেয়ে সাড়ে ৬ গুণ বেশি দেনা আছে মার্কেটে। মানে ইভ্যালির যে সম্পদ আছে তার থেকে ঋণ আছে সাড়ে ৬ গুণ বেশি। প্রায় ৪০০ কোটি টাকার মতো ঋণ আছে তাদের। অথচ মাত্র ৬০-৬৪ কোটি টাকার মতো সম্পদ আছে কোম্পানিটির। আর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে মাত্র আড়াই কোটি টাকার মতো আছে।

গত মঙ্গলবার (২২ জুন) ইভ্যালি ও আলেশা মার্টসহ মোট ১০টি ই-কমার্স থেকে থেকে ক্রেডিট, ডেবিট ও প্রি-পেইড কার্ডের মাধ্যমে কেনাকাটায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ব্র্যাক ব্যাংক। সেই উদ্ধৃতি দিয়ে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ব্র্যাক ব্যাংক দেখলাম ইভ্যালি, ধামাকাসহ ১০টা কোম্পানির নাম বলে দিয়েছে।

সেসব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য কেনার ক্ষেত্রে ব্র্যাক ব্যাংক তাদের কোনো ক্রেডিট কার্ডই ব্যবহার করতে দেবে না। এর মানে ব্যাংকিং কোম্পানি যারা আছে তারা বুঝে গেছে, এসব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান বেশিদিন টিকে থাকবে না। ওইসব প্রতিষ্ঠানের মাইর খাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। যারাই এসব প্রতিষ্ঠানে টাকা ইনভেস্ট করবেন, তাদের বিপদে পড়ার সম্ভাবনা বেশি।

সুমন বলেন, আমি বলছি না এখনই বিপদে পড়বেন। যারা ইভ্যালিসহ এইসব প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য কিনছেন তাদের প্রতি আহ্বান জানাব, যেখানে বাংলাদেশ ব্যাংক শঙ্কিত, ব্র্যাক ব্যাংকের মতো ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড বন্ধ করে দিয়েছে। এখানে আপনারা কতটুকু ইনভেস্ট করবেন তা সতর্কভাবে করা উচিত।

সরকারের উচিত এসব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণ করা। আজকে যখন এদের ৪০০ কোটি টাকা ঋণ হয়ে গেছে, এখন যতই তদন্ত রিপোর্ট দেন, খুব বেশি লোককে বাঁচাতে পারবেন বলে মনে করি না।

এই সংবাদটি শেয়ার করার অনুরোধ রইল

এই বিভাগের আরো সংবাদ পড়ুন এখানে
© All rights reserved © 2020 Sadeshbd
Site Customized By NewsTech.Com
Translate Language »